বাঞ্ছারামপুরে টেটাযুদ্ধ; আহত ৩০

281

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে  আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ১০জন টেটাবিদ্ধসহ আহত হয়েছে ৩০। আজ শনিবার সকাল ৭টায় উপজেলার সোনারামপুর ইউনিয়নের শান্তিপুর গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। আহতদের বাঞ্ছারামপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্র ও        নরসিংদী সদর হাসপাতালে ও স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।গুরুত্বর আহতরা হলেন নজরুল(৪৫), হুমায়ুন(৩৫), শাহজাহান(৪০), মোশারফ মিয়া(২১), ফজর আলী(১৬), আলামিন(২৩)শফি মিয়া (৪৫), আনার মিয়া (৩০), দুলাল মিয়া(৩৫),শিমুল মিয়া(৩০),ইউনুছ মিয়া(৪৫),সাহেব মিয়া(৩২),তারা মিয়া(৩৮),মহারাজ মিয়া(৫৫),জয়নাল সময়া(৪০),জাকারিয়া(৩৫),আবুল(৩২),কামাল(৩৮),আসাদ(৫০),আলামিন(৩৫),বাবুল মিয়া৪৮),সাদেক(৩৬),আশরাফুল(১৬),রাজিয়া বেগম(৫০),সাদা বেগম(৩০) এদের মধ্যে শিমুল মিয়াকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছ্পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে শান্তিপুর গ্রামের সোনারামপুর ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি মতি মেম্বার ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য     ফরিদ উদ্দির এর মধ্যে বিরোধ চলছিলো। ফরিদসহ তার গ্রুপের ১৪ জন ও মতিসহ তার গ্রুপের ৭ জন অন্য মামলায় কারাগারে রয়েছে। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে মামলাও চলছে।
এরই ধারাবাহিকতায় দুই গ্রুপের লোকজন ভোর ৭টায় উভয় গ্রপের বাড়িতে  গিয়ে হামলা করে। পরে দুই গ্রুপের লোকজন ধাওয়া দিলে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে  লোকজন গুরুতর আহত হয়। রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন। 

এব্যপারে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সালাহ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ভোরে মতি মেম্বার গ্রুপের লোক ফরিদ গ্রুপের লোকদের বাড়িতে গিয়ে হামলা করার জেরে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমান ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।